Monday, October 1, 2018

ইসলামের বাণি বিজ্ঞানে প্রমানিত।

পোস্টি পড়ার জন্য অনুরোধ রইল,,
১৪০০ বছর আগে রাসুল (সাঃ) এর বাণী আজ বিজ্ঞানীরা প্রমাণ পেয়েছে !

★ মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেনঃ "পুরুষের প্যান্ট বা কাপড় পায়ের টাখনুর উপর পড়তে হবে। অন্যথায় তারা জাহান্নামে যাবে।"
- (সহীহ বুখারী ৫৩৭১)

বিজ্ঞান বলে, পুরুষের টাখনুর ভিতর প্রচুর পরিমানে হরমোন থাকে এবং তার আলো বাতাসের প্রয়োজন হয়। তাই কেউ যদি তা খোলা না রেখে ঢেকে রাখে, তাহলে তার যৌনশক্তি কমে যাবে এবং বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হবে।

★ মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, "ভ্রু প্লাগকারীর উপর আল্লাহর লানত"
- (সহীহ বুখারী ৫৫১৫)

বিজ্ঞান বলে, ভ্রু হলো চোখের সুরক্ষার
জন্য। ভ্রুতে এমন কিছু লোম থাকে যদি তা
কাটা পড়ে যায় তাহলে ভ্রুপ্লাগকারী পাগল হতে পারে, অথবা মৃত্যুবরণও করতে পারে।

★ রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, "নেশা জাতীয় দ্রব্য খাওয়া হারাম"
- (সহীহ বুখারী ৬১২৪)

বিজ্ঞান বলে, ধুমপানের কারনে ফুস্ফুসের ক্যান্সার, ব্রংকাইটিস ও হৃদরোগ হয়ে মানুষ মারা যায়। ধুম্পান করলে ঠোট, দাতের মাড়ি, আঙ্গুল কালো হয়ে যায়। যৌনশক্তি ও ক্ষুধা কমে যায় এমনকি স্মৃতিশক্তি ও কমে যায়।

★ রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, "পুরুষের জন্য স্বর্ণ ব্যবহার হারাম।"
- (মুসলিম ১৬৫৫)

বিজ্ঞান বলে, স্বর্ণ এমন একটি পদার্থ যা স্কিনের সাথে মিশে ব্লাডের মাধ্যমে ব্রেনে চলে যায়। আর তার পরিমান যদি ২.৩ হয় তাহলে মানুষ তার আগের স্মৃতি সব হারিয়ে ফেলবে।

★ রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, ঘুমানোর সময় আলো নিভিয়ে এবং ডান কাত হয়ে ঘুমাতে।
- (সহীহ বুখারী ৩২৮০)

বিজ্ঞান বলে, ডান কাত হয়ে ঘুমালে হার্ট ভালো করে পাম্প করে। আর লাইট না নিভিয়ে ঘুমালে ব্রেনের এনাটমি রস শরীরে প্রবেশ করতে পারে না, যার ফলে ক্যান্সার হওয়ার খুব সম্ভবনা থাকে।

★ রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, "তোমরা গোফ ছেটে ফেল এবং দাড়ি রাখ।"
- (সহীহ মুসলিম ৪৯৩ ও ৪৯৪)

বিজ্ঞান বলে, দাড়ি না রাখলে স্ক্রিন ক্যান্সার, ফুস্ফুসের ইনফেকশন এবং ৪০ এর আগে যৌবন হারানোর সম্ভবনা থাকে।

★ আল্লাহ সুবনাহু তায়ালা বলেন, "আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়োনা। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং ধ্বংসের পথ।"
- (বনি ইসরাঈল ৩২) নেশাগ্রস্থ শয়তানের কাজ (মাইদাহ ৯০)

বিজ্ঞান বলে, পর্নোগ্রাফি ও অশ্লীল সম্পর্ক সহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য নেশায় যদি কেউ জড়িয়ে পড়ে, তাহলে তার ব্রেনের ফরেন্টাল এরিয়া পরিচালনা করার ইনটেলেকচুয়াল সেলগুলো থরথর করে কাপতে থাকে এবং অস্থির হয়ে যায়। যার ফলে সে নেশাগ্রস্থ হয়ে মাতাল ও অসুস্থের মত জীবন পরিচালনা করে। এবং তা তাকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়।

★ আল্লাহ বলেন, "আর যখন কোরআন পাঠ করা হয়, তখন তাতে কান লাগিয়ে রাখ এবং নিশ্চুপ থাক যাতে তোমাদের উপর রহমত হয়।"
- (আরাফ ২০৪)

বিজ্ঞান বলে, কুরআনের সাউন্ড ওয়েব শরীরের সেলগুলোকে সক্রিয় করে, অসুস্থতা আরোগ্য করে বিশেষ করে হার্ট এবং ক্যান্সার রোগীদের। আর ব্রেনকে এমনভাবে চার্জ করে, ঠিক যেমন ভাবে ফিউজ হওয়া ব্যাটারীকে সচল করা হয়।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন। সবাইকে জানিয়ে দিন ইসলামের বিজয়ের কথা !!

Monday, September 18, 2017

বাংলাদেশ যেকারনে যুদ্ধে জরানো উচিত হবেনা।

আমাদের চেয়ে ২৬ র‍্যাংকিং এগিয়ে থাকা প্রতিবেশী’র সাথে যুদ্ধে নামাটা কতটা সমীচিন হবে একেবারেই আন্তর্জাতিক সমর্থন ছাড়া- সেটা যথেষ্ঠ চিন্তাভাবনার দাবী রাখে।

২৫ অগাস্ট রোহিঙ্গা বিষয়ক ঝামেলা শুরু হওয়ার পর থেকে মিয়ানমার যে শুধু রোহিঙ্গাদের আমাদের সীমান্তে পুশইন করছে- তা নয়। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে বাংলাদেশের আকাশসীমা বারবার লঙ্ঘন করছে। বাংলাদেশ এর প্রতিবাদে বারবার কূটনৈতিকভাবে প্রতিবাদলিপি-ই পাঠাচ্ছে, সামরিক কোন জবাব এখনো দেয়নি। কিন্তু কেন?
::

মিয়ানমারের দৃষ্টিকোণ থেকেই বিশ্লেষণ শুরু করি। রোহিঙ্গাদের নিজ দেশের নাগরিক হিসেবে মিয়ানমার রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেয় না। তাদের ভাষ্যমতে, রোহিঙ্গারা বাঙালি, তাই তাদের বাংলাদেশেই ফেরত যাওয়া উচিৎ। কিন্তু শত বছর ধরে একটি এলাকায় বাস করে যাওয়া জনগোষ্ঠীকে এত সহজে তাড়িয়ে দেওয়া সম্ভব না, অন্তত আধুনিক যুগে। কিন্তু তারপরেও তারা অত্যন্ত বর্বরতার সাথে রোহিঙ্গা বিতাড়ন শুরু করেছে, এবং একই সাথে আকাশসীমা লংঘন করে বারবার বাংলাদেশকে উস্কানি দিচ্ছে। কেননা আন্তর্জাতিক মহলে একটু-একটু করে শুরু হলেও গত এক সপ্তাহে রোহিঙ্গা ইস্যুটি বেশ বড় রকমের আলোচ্য বিষয় হয়ে উঠেছে।
::

মিয়ানমারের সম্ভবত আশা ছিলো, ক্রমাগত উস্কানিতে একটা না একটা সময় বাংলাদেশের ধৈর্য্যচ্যূতি ঘটবে এবং বাংলাদেশ সামরিকভাবে এর জবাব দিবে অনুপ্রবেশকারী একটি বার্মিজ হেলিকপ্টার ভূপাতিত করে। আর ঠিক যে মুহুর্তে এটা ঘটবে, সে মুহুর্তেই পুরো ঘটনা মোড় নিবে নতুন দিকে। শুরু হয়ে যাবে দু’দেশের সীমান্তযুদ্ধ, যা ক্রমান্বয়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে দু’দেশের অভ্যন্তরেও। আন্তর্জাতিক আলোচনার টেবিলে তখন মূল প্রসঙ্গ হয়ে উঠবে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সংঘাত, আর রোহিঙ্গা ইস্যু চলে যাবে ব্যাকফুটে। সত্যি বলতে, এক সপ্তাহ পরে রোহিঙ্গাদের কথা আর কারো মনেই থাকবে না আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে। আর ঠিক এটাই চায় মিয়ানমার। বাংলাদেশকে কোনভাবে যুদ্ধে টেনে আনা মানেই এই দফায় তাদের স্বার্থ হাসিল হয়ে যাওয়া।
::

আন্তর্জাতিক সমর্থনের হিসাব তুললে মিয়ানমারের পাশে আছে চীন। আর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সশরীরে মিয়ানমার গিয়ে সমর্থন জানিয়ে এসেছেন ‘সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে’, যেখানে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি ভারত জানিয়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজকে দিয়ে ফোনকলের মাধ্যমে। এ থেকেই পরিষ্কার যে আঞ্চলিক দুই সুপারপাওয়ারেরই সমর্থনের পাল্লা অনেকটাই ভারী মিয়ানমারের পক্ষে। আমেরিকা এখনো চুপচাপ, পরিষ্কার কিছু না বললেও আখেরে তারাও মিয়ানমারের দিকেই ঝুঁকবে। রাশিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে সমর্থন জানিয়েছে মিয়ানমার সরকারের প্রতি।
: :

ক’বছর আগে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে ব্রাত্য হয়ে থাকা সামরিক জান্তা-শাসিত দেশটির হঠাৎ এত কদর কেন? কেননা বেশ কয়েক দশক নিজেদের একঘরে করে রাখার পর ক’ বছর আগেই তারা তাদের বাজার খুলে দিয়েছে বৈদেশিক বিনিয়োগের জন্য।আর সে সুযোগে বানের পানির মত বিনিয়োগ ঢুকছে প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর এই দেশটিতে। বিনিয়োগকারীর এই লম্বা লিস্টে কে নেই? আমেরিকা, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ইসরায়েল, ভারত, পাকিস্তান আর সেই সাথে তাদের সবসময়ের বন্ধু চীন। এ কারণেই প্রায় সব সুপারপাওয়ারের কাছেই এ মুহুর্তে বাংলাদেশের চেয়ে অনেক বেশি আরাধ্য মিয়ানমার। প্রত্যেকেরই বিনিয়োগের টাকা ঢুকছে দেশটিতে, যার কয়েকগুণ সবাই উসুল করে নিবে আগামী কয়েক দশকের মধ্যেই।
::

উল্টোদিকে বাংলাদেশ পাশে পাবে মধ্যম কাতারের কয়েকটি মুসলিম দেশকে শুধু; যাদের মূল ফোকাস শুধুই নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের উপর, বাংলাদেশ না। তারা ঘরহারা রোহিঙ্গাদের সাহায্য করতে চায়, কিন্তু এর জের ধরে বাংলাদেশ-মিয়ানমার যুদ্ধ লাগলে তারা যে আমাদের সামরিকভাবে সাহায্য করবে বা করতে পারবে তা কিন্তু না, কেননা এতে মিয়ানমারের সমর্থনে থাকা সুপারপাওয়ারদের সাথে তাদের ব্যবসায়িক এবং কূটনৈতিক সম্পর্ক অবনতির ভয় থাকে। তাই পূর্ণমাত্রার সামরিক সমরে বাংলাদেশ হয়ে পড়বে একেবারেই আন্তর্জাতিক বন্ধুহীন।
::

এবার আসি মিয়ানমারের চেয়ে সামরিক শক্তিতে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশের আলাপে। আমাদের অনেকের হয়তো ধারণা একবার যুদ্ধ শুরু হলে আমাদের সেনাবাহিনী এক সপ্তাহের মধ্যে মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে শায়েস্তা করে ফিরতে পারবে।
::

কিন্তু পরিসংখ্যান ভিন্ন কথা বলে। গ্লোবাল ফায়ারপাওয়ারের হিসাব অনুযায়ী, মিয়ানমারের র‍্যাংকিং যেখানে ৩১, বাংলাদেশের ৫৭। এবং এখানে শুধু যে সৈন্যসংখ্যা, অস্ত্রসংখ্যা ইত্যাদি’র গণনা করে র‍্যাংকিং করা হয়েছে তা না, বরং সর্বমোট ৫০টির মত প্যারামিটার পর্যালোচনা করে এ হিসাব করা হয়েছে। হ্যাঁ, যুদ্ধের ময়দানে বুদ্ধিদীপ্ত কৌশল খাটিয়ে বড় প্রতিপক্ষকে কাবু করেছে অপেক্ষাকৃত ছোট যোদ্ধাদল- এমন ইতিহাস ভুরি-ভুরি আছে। কিন্তু এই আশায় বুক বেঁধে অঘটন ঘটার কল্পনায় যুদ্ধে নামবে না কোন পেশাদার সামরিক বাহিনী।
::

সেই সাথে আছে MAD-এর আশংকা। MAD এর পূর্ণ রুপ “Mutually Assured Destruction”, যার সহজ বাংলা তরজমা দাঁড়ায়- “তুইও মরবি, তোকে মারতে গিয়ে আমিও মরবো”। যদিও এই Mad Doctrine পারমাণবিক অস্ত্রধারী দেশগুলোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, তবে এখানে বাংলাদেশ-মিয়ানমারের বর্তমান অর্থনীতিতেও যুদ্ধে জড়ানোর সিদ্ধান্ত একই প্রভাব রাখতে পারে।
::

দুইটি দেশই সাম্প্রতিক সময়ে অর্থনৈতিকভাবে অনুন্নত দেশের কাতার থেকে উঠে আসার চেষ্টা করছে। এ অবস্থায় যুদ্ধে জড়ানো হবে নিজ পায়ে কুড়াল মারার চেয়েও ভয়াবহ সিদ্ধান্ত। যুদ্ধ যেমন রক্তপাতের হিসাবে সস্তা না, তেমনি এর অর্থনৈতিক প্রভাবও অকল্পনীয়। শুধু যে খরচের খাতা ভারী হবে, তা না। বিবদমান দু’টি দেশেরই লক্ষ্য থাকবে প্রতিপক্ষ প্রতিবেশীকে অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু করে দেওয়া, যেন অদূর ভবিষ্যতে তারা আবার একে অপরের স্বার্থের বিরুদ্ধে যেতে না পারে। আর এর জের ধরে প্রতিপক্ষের আক্রমণে ধংস হবে দুই দেশেরই অর্থনীতির চালিকাশক্তি দেশীয় সম্পদ এবং বৈদেশিক বিনিয়োগগুলো। মুখ ফিরিয়ে নিবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং বিনিয়োগকারীরা। যার প্রভাবে মাথা গরম করে শুরু করে দেওয়া এক যুদ্ধের কুপ্রভাব কয়েক দশকেও কাটিয়ে ওঠা কষ্টকর হয়ে উঠবে দেশ দু’টির জন্য।
::

সুতরাং, যেখানে জাপান ১৬ ঘর পিছিয়ে থাকা উত্তর কোরিয়াকে জবাব দিতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে চিন্তাভাবনা করছে এত এত সুপারপাওয়ারের প্রত্যক্ষ সমর্থন থাকার পরেও, সেখানে আমাদের চেয়ে ২৬ র‍্যাংকিং এগিয়ে থাকা প্রতিবেশী’র সাথে যুদ্ধে নামাটা কতটা সমীচিন হবে একেবারেই আন্তর্জাতিক সমর্থন ছাড়া- সেটা যথেষ্ঠ চিন্তাভাবনার দাবী রাখে। আর এমন যদি হতো যে এই যুদ্ধ শুরু করলেই আমাদের প্রাথমিক যে লক্ষ্য- রোহিঙ্গাদের ঘরে পাঠানো, সেটা সফল হবে তা-ও কিন্তু না, যেটা উপরেই আলোচনা করেছি। বরং রোহিঙ্গাদের সাথে সাথে আমাদেরও দুর্দশা বাড়বে। আর যুদ্ধ যে শুধু সেনাবাহিনীর সাথে সেনাবাহিনীর হবে, তা কিন্তু না। বোমা পড়বে আপনার বাড়িতে, আপনার পরিবারের উপরও। আর অবস্থা খারাপের দিকে গেলে হয়তো আপনাকেও শরণার্থীর খাতায় নাম লেখাতে হতে পারে অচিরেই।
copied from Saeedul Mostafa

Friday, May 5, 2017

হযরত তালহা ( রাঃ) এর একটি ঘটনা।

  ইসলাম  জান্নাতের সার্টিফিকেট প্রাপ্ত সাহাবী হযরত তালহা ও তার স্ত্রীর কাহিনী শুনলে আপনিও কাঁদবেন
জান্নাতের সার্টিফিকেট প্রাপ্ত সাহাবী হযরত তালহা ও তার স্ত্রীর কাহিনী শুনলে আপনিও কাঁদবেন
জান্নাতের সার্টিফিকেট প্রাপ্ত সাহাবী হযরত তালহা ও তার স্ত্রীর কাহিনী শুনলে আপনিও কাঁদবেন

হযরত তালহা (রা:) প্রতিদিন নবীজীর পেছনে ফজরের নামাজ পড়েন। কিন্তু নামাজে সালাম ফিরানোর সাথে সাথে তিনি মসজিদে না বসে তাড়াতাড়ি বাড়ি চলে যান। এভাবে কয়েকদিন চলার পর অন্যান্য সাহাবিরা এটা নিয়ে আলোচনা শুরু করলেন যে, প্রতিদিন সালাম ফিরিয়েই তালহা চলে যান। অথচ নবীজী (সা:) ফজরের পর সূর্য উদয় না হওয়া পর্যন্ত মসজিদে বসে বয়ান করেন।

অন্যান্য সব সাহাবিরাও রাসূলের কাছে বসে থাকেন। এক পর্যায়ে এই কথা নবীজীর কানে পৌছালো। নবীজী সাহাবিদের বললেন, আগামিকাল ফজরের নামাজ শেষে তালহা যেন আমার সাথে দেখা করে। পরের দিন নামাজে আসলে তালহাকে একথা জানিয়ে দেয়া হল। ফজরের নামাজ শেষ। তালহা বসে আছেন নবীজীর সাথে দেখা করার জন্য। একপর্যায়ে নবীজী তালহাকে ডাকলেন। নবীজী অতি মোলায়েম কন্ঠে তালহাকে বললেন, তালহা! আমি কি তোমাকে কোন কষ্ট দিয়েছি? আমি কি তোমার কোন হক নষ্ট করেছি? একথা শুনে তালহা কেদে ফেললেন এবং বললেন, হে আল্লাহর রাসুল (সা:)! আমার জীবন আপনার জন্য উৎসর্গ হোক। আপনি আমার কোন হক নষ্ট করেননি। নবীজী (সা:) বললেন, তাহলে তালহা! তুমি প্রতিদিন নামাজ শেষে আমার কাছে না বসে চলে যাও কেন?

তালহা কেদে কেঁদে বললেন, রাসুল (সা:)! আমার এবং আমার স্ত্রীর সতর ডাকার জন্য একটি মাত্র জামা আছে। যেটা পরে আমি যখন নামাজ পড়ি আমার স্ত্রী তখন উলংগ থাকেন। স্ত্রী যখন নামাজ পড়েন আমি তখন উলংগ থাকি। এক্ষেত্রে ফজরের নামাজের সময় একটু অসুবিধা হয়ে যায় ইয়া আল্লাহর রাসুল (সা:)। ফজরের নামাজে আসার সময় আমি আমার স্ত্রীকে একটা গুহায় রেখে আসি। এমতাবস্থায় আমি যদি নামাজ শেষে এখানে বসে থাকি তাহলে তো আমার স্ত্রীর নামাজটা কাজা হয়ে যাবে ইয়া আল্লাহর রাসূল। এজন্য আমি নামাজ শেষে দৌড়ে চলে যাই। তালহার কথা শুনে আল্লাহর রাসুল দরদর করে কেঁদে ফেলেন। নবীজীর দাঁড়ি বেয়ে বেয়ে চোখের পানি পড়তেছে। সাথে সাথে নবীজী তালহাকে জানিয়ে দিলেন, তালহারে! নিশ্চয়ই তুমি জান্নাতে যাবে। আল্লাহু আকবার।

(কাহিনী টি মুসনাদে আহমদে বর্ণিত হয়েছে)।

Thursday, April 20, 2017

সুদ সম্পর্কে

সৌধ সম্পর্কে)

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُواْ لاَ تَأْكُلُواْ الرِّبَا أَضْعَافًا مُّضَاعَفَةً وَاتَّقُواْ اللّهَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ
130

হে ঈমানদারগণ! তোমরা চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ খেয়ো না। আর আল্লাহকে ভয় করতে থাক, যাতে তোমরা কল্যাণ অর্জন করতে পারো।(সূরা আলে ইমরান-১৩০)

وَأَخْذِهِمُ الرِّبَا وَقَدْ نُهُواْ عَنْهُ وَأَكْلِهِمْ أَمْوَالَ النَّاسِ بِالْبَاطِلِ وَأَعْتَدْنَا لِلْكَافِرِينَ مِنْهُمْ عَذَابًا أَلِيمًا
161

আর এ কারণে যে, তারা সুদ গ্রহণ করত, অথচ এ ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল এবং এ কারণে যে, তারা অপরের সম্পদ ভোগ করতো অন্যায় ভাবে। বস্তুত; আমি কাফেরদের জন্য তৈরী করে রেখেছি বেদনাদায়ক আযাব।(সূরা আন নিসা-১৬১)

الَّذِينَ يَأْكُلُونَ الرِّبَا لاَ يَقُومُونَ إِلاَّ كَمَا يَقُومُ الَّذِي يَتَخَبَّطُهُ الشَّيْطَانُ مِنَ الْمَسِّ ذَلِكَ بِأَنَّهُمْ قَالُواْ إِنَّمَا الْبَيْعُ مِثْلُ الرِّبَا وَأَحَلَّ اللّهُ الْبَيْعَ وَحَرَّمَ الرِّبَا فَمَن جَاءهُ مَوْعِظَةٌ مِّن رَّبِّهِ فَانتَهَىَ فَلَهُ مَا سَلَفَ وَأَمْرُهُ إِلَى اللّهِ وَمَنْ عَادَ فَأُوْلَـئِكَ أَصْحَابُ النَّارِ هُمْ فِيهَا خَالِدُونَ
275

যারা সুদ খায়, তারা কিয়ামতে দন্ডায়মান হবে, যেভাবে দন্ডায়মান হয় ঐ ব্যক্তি, যাকে শয়তান আসর করে মোহাবিষ্ট করে দেয়। তাদের এ অবস্থার কারণ এই যে, তারা বলেছেঃ ক্রয়-বিক্রয় ও তো সুদ নেয়ারই মত! অথচ আল্লা’হ তা’আলা ক্রয়-বিক্রয় বৈধ করেছেন এবং সুদ হারাম করেছেন। অতঃপর যার কাছে তার পালনকর্তার পক্ষ থেকে উপদেশ এসেছে এবং সে বিরত হয়েছে, পূর্বে যা হয়ে গেছে, তা তার। তার ব্যাপার আল্লাহর উপর নির্ভরশীল। আর যারা পুনরায় সুদ নেয়, তারাই দোযখে যাবে। তারা সেখানে চিরকাল অবস্থান করবে।(সূরা বাকারা-২৭৫)

يَمْحَقُ اللّهُ الْرِّبَا وَيُرْبِي الصَّدَقَاتِ وَاللّهُ لاَ يُحِبُّ كُلَّ كَفَّارٍ أَثِيمٍ
276

আল্লাহ তা’আলা সুদকে নিশ্চিহ্ন করেন এবং দান খয়রাতকে বর্ধিত করেন। আল্লাহ পছন্দ করেন না কোন অবিশ্বাসী পাপীকে।(সূরা আল বাকারা-২৭৬)

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُواْ اتَّقُواْ اللّهَ وَذَرُواْ مَا بَقِيَ مِنَ الرِّبَا إِن كُنتُم مُّؤْمِنِينَ
278

হে ঈমানদারগণ, তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং সুদের যে সমস্ত বকেয়া আছে, তা পরিত্যাগ কর, যদি তোমরা ঈমানদার হয়ে থাক।(সূরা আল বাকারা-২৭৮)

فَإِن لَّمْ تَفْعَلُواْ فَأْذَنُواْ بِحَرْبٍ مِّنَ اللّهِ وَرَسُولِهِ وَإِن تُبْتُمْ فَلَكُمْ رُؤُوسُ أَمْوَالِكُمْ لاَ تَظْلِمُونَ وَلاَ تُظْلَمُونَ
279

অতঃপর যদি তোমরা পরিত্যাগ না কর, তবে আল্লাহ ও তাঁর রসূলের সাথে যুদ্ধ করতে প্রস্তুত হয়ে যাও। কিন্তু যদি তোমরা তওবা কর, তবে তোমরা নিজের মূলধন পেয়ে যাবে। তোমরা কারও প্রতি অত্যাচার করো না এবং কেউ তোমাদের প্রতি অত্যাচার করবে না।(সূরা আল বাকারা-২৭৯)

Saturday, March 25, 2017

আমার সামাজিক গনমাধমের url সমূহ।

Social Media Account & id :

https://www.facebook.com/salauddin1995 https://www.twitter.com/salauddin1995 https://www.instagram.com/salauddin1996 https://www.youtube.com/salauddin1995 https://plus.google.com/+salauddin1995 https://www.linkedin.com/in/salauddin1995 https://www.vimeo.com/salauddin1995 https://www.picsart.com/salauddin1995 https://www.pinterest.com/salauddin1995 https://www.dailymotion.com/salauddin1995 https://salauddin1995.tumblr.com https://salauddin1995.blogspot.com https://goodboysalauddin.wordpress.com

E-mail :
salauddin1995@hotmail.com
m.salauddin1995@gmail.com
m.salauddin1995@hotmail.com
m.salauddin1995@yahoo.com

Wednesday, March 8, 2017

বাংলাদেশি স্বামী পেয়ে সুখী মালয়েশীয় নারীরা

কায়সার হামিদ হান্নান
১৫ নভেম্বর ২০১৫, ০৯:০৩ | আপডেট: ১৫ নভেম্বর ২০১৫, ১৪:১৬

মালয়েশিয়া পর্যটন নগরীর দেশ। ব্যবসা, শিক্ষা, সংস্কৃতি সব বিষয়ে বিশ্বে মালয়েশিয়ার যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। বিশ্বের বহু দেশের মানুষ এসে মালয়েশিয়া বসবাস করছে। কারণ এখানকার আবহাওয়া নাতিশীতোষ্ণ, সবাই খাপ খাইয়ে নিতে পারে। ঢাকার খরচে যে কেউ মালয়েশিয়া বসবাস করতে পারেন। মালয়েশিয়ায় ছাত্র, শিক্ষক, প্রকৌশলী, চিকিৎসক, শ্রমিক মিলিয়ে প্রায় ১০ লাখ বাংলাদেশি বসবাস করেন।
আধুনিক মালয়েশিয়া গড়ার পেছনে বাংলাদেশিদের অক্লান্ত পরিশ্রম রয়েছে। এটা আর কোনো দেশ দাবি করতে পারবে না। বাংলাদেশিদের এই অবদান দেশটির সরকার ও সাধারণ মানুষও স্বীকার করেন। বাংলাদেশের নাগরিকরা কঠোর পরিশ্রম, সততা আর দক্ষতায় মালয়েশীয়দের ভালোবাসা ও আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এসব কারণে বিয়ে করার জন্য মালয়েশীয় নারীদের পছন্দের তালিকায় রয়েছেন বাংলাদেশি যুবকরাও।
বাংলাদেশি নাগরিকদের মালয়েশীয় স্ত্রীরা মিলে সংগঠন গড়ে তুলেছেন। তাঁদের কার্যক্রমও আছে। নিজেদের মধ্যে যোগাযোগের পাশাপাশি একে অন্যের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়ান তাঁরা। একই সঙ্গে তাঁরা মালয়েশিয়ার সমাজে বাংলাদেশিদের সততা, কর্মদক্ষতার কথাও তুলে ধরেন।

এমন একটি সংগঠন ‘কেলাব স্ত্রী’ বা কেআইবি। সংক্ষেপে বাংলা অর্থ করলে দাঁড়ায় ‘মিষ্টি বউ’। সংগঠনটি ২০১৪ সালে গঠন করা হয়। গত ৬ নভেম্বর এই সংগঠনের উদ্যোগে কুয়ালালামপুরে আয়োজন করা হয়েছিল এক প্রীতি সম্মিলনীর। সেখানেই আয়োজকরা তাঁদের সংগঠনের উদ্দেশ্য ও বাংলাদেশ সম্পর্কে তাঁদের অভিব্যক্তি তুলে ধরেন।
বাংলাদেশি নাগরিকের মালয়েশীয় স্ত্রী সাশা সৌন সংগঠনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলেন, ‘আমাদের মালয়েশীয়দের মধ্যেও কেউ কেউ বাংলাদেশিদের ছোট করে দেখেন। তাঁরা মনে করেন, বাংলাদেশ একটা গরিব দেশ। তারা শুধু মালয়েশিয়ায় কাজ করতে আসে, তারা শ্রমিক। আর বাংলাদেশিদের মধ্যেও মালয়েশীয় নারীদের নিয়ে একটা খারাপ ধারণা আছে। আমরা বাংলাদেশের গ্রামগঞ্জে গিয়ে দেখেছি, সেখানকার মানুষের ধারণা, মালয়েশিয়া খারাপ দেশ। মালয়েশীয় মেয়েরা শুধু বাংলাদেশি ছেলেদের আটকে রাখে।’

‘এই ভ্রান্ত ধারণা পাল্টে দিতেই আমরা বেশ কয়েকজন মালয়েশীয় নারী, যাঁরা বাংলাদেশি নাগরিকদের বিয়ে করেছি, তাঁরা সংগঠন গঠন করি। আমাদের সংগঠনের মূল উদ্দেশ্য হলো, মালয়েশিয়াবাসীর কাছে আমাদের স্বামীদের ভালোভাবে উপস্থাপন করা’, যোগ করেন সাশা শৌন। তাঁর মতে, বাংলাদেশিরা অনেক ভালো। তাঁরা কঠোর পরিশ্রম করতে ভালোবাসেন। তাঁদের মধ্যে রয়েছে সততা ও ভালোবাসা। মালয়েশিয়া মুসলিমপ্রধান দেশ। বাংলাদেশের মানুষও  মুসলিম। বাংলাদেশিদের মধ্যে ধর্মের প্রতি রয়েছে অগাধ বিশ্বাস আর তাঁরা অতিথিপরায়ণ।
বাংলাদেশি নাগরিকদের বিয়ে করেছেন মালয়েশিয়ার সুসি ও লিজা। তাঁরাও শুরু থেকে যুক্ত ছিলেন ‘মিষ্টি বউ’ সংগঠনের সঙ্গে। তাঁরা নিজেদের দাম্পত্য জীবনে সুখী মনে করেন। তাঁদের মতে, বাংলাদেশিরা স্ত্রীদের অনেক মর্যাদা দেন। কর্মস্থলে থাকলেও তাঁরা স্ত্রীদের যথেষ্ট খোঁজখবর রাখেন।’

সুসি, লিজা, শাশা মনে করেন, বাংলাদেশিরা এখানে শুধু কাজ করেন না, তাঁরা কাজ করানও। তাঁদের প্রতিষ্ঠানে অনেক মালয়েশীয় নারী-পুরুষ স্বাচ্ছন্দ্যে কাজ করেন।
সম্প্রতি মালয়েশিয়ায় ব্যাপক বন্যা হয়। দুর্গতদের পাশে অন্য কোনো দেশ না দাঁড়ালেও বাংলাদেশ দাঁড়িয়েছে। এটাও বাংলাদেশি নাগরিকদের মালয়েশীয় স্ত্রীদের গর্বের আরেকটি কারণ। বিষয়টি মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব তুন রাজ্জাকেরও নজরে আসে। যদিও এটা আবার বাংলাদেশিদের প্রতি মালয়েশিয়ায় বসবাসরত অন্য জাতির মানুষের জন্য ঈর্ষার একটি কারণ বলে মনে করেন ‘মিষ্টি বউ’ সংগঠনের উদ্যোক্তারা।
মালয়েশিয়ায় প্রবাসী শ্রমিক নিয়োগের ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাহিদ হামিদির কাছে বাংলাদেশিরা প্রাধান্য পান। এর একটি প্রমাণ হলো, গত ৪ নভেম্বর মালয়েশিয়ার সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামিদি বলেন, ‘এটা চোখ বন্ধ করেই বলা যায়, বাংলাদেশি শ্রমিকরা অন্যদের তুলনায় বেশি সৎ। আমরা দেখেছি, তারা যদি ব্যবসার ক্যাশে বসেন অথবা পেট্রল স্টেশনের কাউন্টারে বসেন, তাঁরা অনেক বেশি বিশ্বস্ততার পরিচয় দেন।
জাহিদ হামিদির এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেন সুশি, শাশা ও লিজা।

সম্প্রতি মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশি এক শ্রমিককে গাড়ি ময়লা করার অভিযোগে নির্যাতন করেন এক গাড়ির মালিক। গত ১৭ অক্টোবর দুপুর ২টার দিকে কুয়ালালামপুরের সুংগাই বুলুহ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশি শ্রমিককে নির্যাতনের ঘটনার আংশিক দৃশ্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এ অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ান মালয়েশিয়ার মানুষও। তাঁরা এর প্রতিবাদ করেন। দোকানের গোপন ক্যামেরায় ধারণ করা বাংলাদেশি নির্যাতনের এ ভিডিওটি শনিবার রাত পর্যন্ত প্রায় ৪৯ হাজারবার শেয়ার হয়েছে এবং এক মিলিয়নেরও বেশিবার দেখা হয়েছে। মন্তব্য করা হয়েছে প্রায় ৩২ হাজার। বাংলাদেশি শ্রমিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার বাংলাদেশি নাগরিকদের মালয়েশীয় স্ত্রীরা। তাঁরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেও একটি গ্রুপ পেজ চালান। সেখানে বাংলাদেশের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে বাংলাদেশের পোশাক, খাবার, বাংলাদেশি খবরা-খবর এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পোস্ট করা হয়।

কেআইবি সংগঠনে এখন প্রায় ২০০ বাংলাদেশি নাগরিকের মালয়েশীয় স্ত্রী যুক্ত রয়েছেন। তাঁদের উদ্যোগে আগামী ৫ ডিসেম্বর কুয়ালালামপুর আম্পাং হলরুমে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত শহীদুল ইসলামকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।
মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশি কোনো দম্পতি ইচ্ছে করলেই ফেসবুক পেজে যুক্ত হতে পারেন। যাঁরা কেআইবি-তে যুক্ত হতে চান, তাঁরা গ্রুপ পেজ K.I.M.B.A (KELAB isteri-isteri Malaysia+Bangladesh) দেখতে পারেন।(ntv)